• আগামী দু-একদিনের মধ্যে পদ্মা সেতুর ১৩তম স্প্যান বসানো হবে : ওবায়দুল কাদের


    স্টাফ রিপোর্টার : সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এমপি জানান, পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের সার্বিক অগ্রগতি শতকরা ৬৭ ভাগ এবং ২১ অথবা ২২ মে ২০১৯ পদ্মা সেতুর ১৩তম স্প্যানটি বসানো হবে।

    মন্ত্রী সোমবার সকালে সেতুবিভাগের আওতাধীন চলমান উন্নয়ন প্রকল্পের অগ্রগতি বিষয়ক সভা এবং গণমাধ্যমের সাথে মতবিনিময়কালে উপস্থিত সাংবাদিকদের একথা জানান।

    তিনি আরও জানান, পদ্মাবহুমুখী সেতু প্রকল্পের মূল সেতুর অগ্রগতি শতকরা ৭৬ ভাগ, নদী শাসনকাজের অগ্রগতি শতকরা ৫৫ ভাগ, সংযোগ সড়কের অগ্রগতি শতকরা ১০০ ভাগ এবং প্রকল্পের সার্বিক অগ্রগতি শতকরা ৬৭ ভাগ। মূল সেতুর নদীর মধ্যে ২৬২ টি পাইলের মধ্যে ২৩৬টির কাজ শেষ হয়েছে এবং অবশিষ্ট ২৬টি পাইলের কাজ জুলাই ২০১৯ মাসের মধ্যে শেষ হবে। মূল সেতুর ৪২টি পিয়ারের মধ্যে ২৫টির কাজ পুরাপুরি সম্পন্ন হয়েছে, জুন মাসের মধ্যে আরও ০৬টি পিয়ারের কাজ শেষ হবে এবং বাকি ১১টির কাজ চলমান আছে। মোট স্প্যান ৪১টি। মাওয়া সাইটে এ পর্যন্ত ট্রাস (স্প্যান) এসেছে ২৩টি যার মধ্যে ১২টি স্থাপন করা হয়েছে। ফলে এখন ১৮০০ মিটার দৃশ্যমান। আগামীকাল (২১ মে) অথবা তার পরদিন (২২ মে) ১৩ তম স্প্যান স্থাপন করা হবে। এছাড়াও অবশিষ্ট স্প্যানগুলোর কাজ চীনে প্রায় শেষ পর্যায়ে রয়েছে। মাওয়া ও জাজিরা ভায়াডাক্টের পাইলিং এবং পিয়ারের কাজ শেষ হয়েছে। বর্তমানে পিয়ারক্যাপ এবং গার্ডার স্থাপনের কাজ চলছে। মোট ১৩ কি.মি. নদীশাসন কাজের মধ্যে ৩ (তিন) কি.মি. সম্পূর্ণ হয়েছে। আগামী ডিসেম্বর এর মধ্যে আরও ৪ (চার) কি.মি. কাজ সম্পন্ন হবে।

    গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ তারিখে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী Tunnel Boaring Machine (TBM) এর মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে কর্ণফুলী নদীর তলদেশে বহুলেন সড়ক টানেল নির্মাণ প্রকল্পের খনন কাজের শুভ উদ্ভোধন করেন। ইতিমধ্যে প্রতিটি ২ মিটার দৈর্ঘ্যরে ৮০টি Tunnel Ring বসানোর কাজ অর্থাৎ ১৬০ মিটার টানেল খননের কাজ সম্পন্ন হয়েছে। ৩০ এপ্রিল ২০১৯ পর্যন্ত সার্বিক অগ্রগতি শতকরা ৩৮ ভাগ। ২০২২ সালে টানেলটির নির্মাণকাজ শেষ হবে।

    ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে পিপিপি প্রকল্পের ভৌতকাজে এ পর্যন্ত ১৩৩৩টি পাইল, ৩০০টি পাইলক্যাপ, ৭৯টি ক্রস-বিম, কলাম ১৮৭ (সম্পূর্ণ) ও ১১৯টি (আংশিক), ১৮৬টি আইগার্ডার নির্মাণ সম্পন্ন হয়েছে। ১ম ধাপের ক্ষতিপূরণ প্রদান করা হয়েছে এবং ২য় ও ৩য় ধাপের ক্ষতিপূরণ প্রদান চলমান আছে। এছাড়াও ১৪ টি স্প্যান আইগার্ডার স্থাপন কাজ সম্পন্ন হয়েছে।

    ঢাকা শহরে সাবওয়ে (আন্ডারগ্রাউন্ড মেট্রো) নির্মাণে সম্ভাব্যতা সমীক্ষা পরিচালনা কাজের পরামর্শক প্রতিষ্ঠান (TYPSA) Inception Report দাখিল করেছে এবং জুন ২০১৯ এর মধ্যে Interim Report দাখিল করবে। ডিসেম্বর ২০২০ নাগাদ সম্ভাব্যতা সমীক্ষা সম্পন্ন হবে।

    গাইবান্ধা এবং জামালপুর জেলার সংযোগকারী যমুনা নদীর তলদেশে টানেল নির্মাণের লক্ষ্যে সম্ভাব্যতা সমীক্ষা পরিচালনার পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। উক্ত সমীক্ষার জন্য বৈদেশিক অর্থ সংস্থানের লক্ষ্যে পিডিপিপি নীতিগতভাবে অনুমোদিত হয়েছে। বৈদেশিক অর্থায়ন নিশ্চিত সাপেক্ষে যথাসময়ে সমীক্ষা শুরুর আশা প্রকাশ করেন মন্ত্রী।

    এ সময় সেতু বিভাগের সিনিয়র সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম, বিভিন্ন প্রকল্পের পরিচালকসহ সেতু বিভাগের অন্যান্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

    Spread the love
    Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial