• তাজউদ্দীন হাসপাতাল মর্গে লাশের ময়না তদন্তে বিলম্ব, আরএমও লাঞ্চিত


    গাজীপুর প্রতিনিধি : মর্গে থাকা লাশের ময়নাতদন্ত বিলম্ব হওয়ার অভিযোগে নিহতের বন্ধু-বান্ধব ও স্বজনরা মঙ্গলবার দুপুরে গাজীপুরের শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসককে লাঞ্চিত করেছে। এসময় বিক্ষুব্ধরা মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষের অফিসের জানালার কাঁচ ও ফুলের টব ভাংচুর করে। খবর পেয়ে গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের সদর থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে। এসময় তিন বহিরাগত হামলাকারীকে আটক করেছে মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থীরা।

    শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক প্রণয় ভ‚ষন দাস জানান, সোমবার দুপুরে হাসপাতালের মর্গে দু’টি লাশ আসে। বিষয়টি তিনি মঙ্গলবার সকালে জানতে পারেন। বেলা ১২টার দিকে তিনি লাশ দু’টির ময়নাতদন্তের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। এসময় ১৫-২০ জনের একদল বহিরাগত যুবক একসঙ্গে তার অফিস কক্ষে প্রবেশ করে ডাক্তার খুঁজতে থাকে। তিনি নিজকে ডাক্তার পরিচয় দিলে ওই যুবকরা কিছু বুঝে উঠার আগেই তাকে এলোপাথারিভাবে মারধর শুরু করে। কেউ কেউ লাঠি সোটা খুঁজতে থাকে। হামলাকারীরা তার অফিসের টেবিল ভাংচুর ও কাগজপত্র তছনছ করে। এসময় তার অফিস সহায়ক জাহিদ বাধা দিলে তাকেও বেধড়ক মারধর করা হয়।

    ডা: প্রণয় ভ‚ষন দাস আরো জানান, উত্তেজিত যুবকদের হাত থেকে রক্ষা পেতে তিনি দৌঁড়ে মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষের অফিসে দু’তলায় চলে যান। সেখানেও ওই যুবকরা গিয়ে তাকে লাঞ্চিত করে এবং অধ্যক্ষের অফিসের জানালা, ফুলের টব ভাংচুর করে। পরে তিনি একটি কক্ষে প্রবেশ করে দরজা বন্ধ করে রক্ষা পান।

    এ দিকে হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসককে বহিরাগতরা লাঞ্চিত এবং কলেজের আসবাবপত্র ভাংচুরের খবর পেয়ে মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থীরা ক্লাশ ছেড়ে বেরিয়ে আসে। পরে তারা ধাওয়া দিয়ে তিন হামলাকারীকে আটক করে। এরা হচ্ছে অন্তর (১৭), শান্ত (২০) ও রোহান (১৮)। পরে সদর থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে এবং আটককৃতদের থানায় নিয়ে যায়।

    সদর থানার ইন্সপেক্টর (অপারেশন) মো: জাহাঙ্গীর আলম জানান, লাশের ময়নাতদন্ত করতে দেরী হওয়ার অভিযোগে বিক্ষুব্ধ স্বজনরা হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসকের উপর হামলা চালিয়েছে। এ সময় তিন হামলাকারীকে মেডিকেল কলেজের ছাত্র, দায়িত্বরত আনসার সদস্য ও কর্মচারিরা মিলে আটক করেছে। এ ব্যাপারে মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ লিখিত অভিযোগ দিলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

    উল্লেখ্য, সোমবার দুপুরে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের ভোগড়া বাইপাস মোড়ে লড়ি চাপায় দুই মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হয়। এরা হচ্ছে-সজিব স (১৭) ও অনুর্ধ ১৮ ক্রিকেট দলের গাজীপুরের অধিনায়ক ক্রিকেটার জয়দেব নাথ (১৭)। ওই দিন দুপুরে পুলিশ তাদের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য গাজীপুরের শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠায়। মর্গে ২০ ঘন্টারও বেশী সময় ধরে লাশ দুটি পড়ে থাকায় এবং দ্রুততম সময়ে ময়নাতদন্ত সম্পন্ন না হওয়ায় ক্ষুব্ধ নিহত দুই কিশোরের স্বজন ও বন্ধুরা এ হামলা চালায়।

    Spread the love
    Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial