• বর্ণিল আয়োজনে ডুয়েট ডে উদযাপিত


    গাজীপুর প্রতিনিধি : শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের পদচারণা ও মিলনমেলায় মুখরিত হলো গাজীপুরস্থ ঢাকা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (ডুয়েট) ক্যাম্পাস। একসঙ্গে শোভাযাত্রা, নাচ, গান, আড্ডা আর নানা আয়োজনে মেতেছিলেন তারা। বিশ্ববিদ্যালয়টির ১৫তম বর্ষপূর্তিতে ডুয়েট ডে’১৮ উপলক্ষ্যে ছিল এ উৎসবের আয়োজন। গোটা ক্যাম্পাসও সেজেছিল বর্ণিল সাজে।

    সকালে সাদা পায়রা ও রঙিন বেলুন উড়িয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে বৃহস্পতিবার ডুয়েট ডে’র শুভ উদ্বোধন করেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম ও উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আলাউদ্দিন। এর আগে সূর্যোদয়ের সময় ক্যাম্পাসে জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সূচনা হয়।

    প্রধান অতিথির উপস্থিতিতে ১৫ বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর কেক কাটা হয়। এরপর ‘শেখ হাসিনার উন্নয়নের অগ্রযাত্রায়, ডুয়েট থাকবে সর্বদাই’ এই স্লোগানকে উপজীব্য করে উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আলাউদ্দিনের নেতৃত্বে পুরাতন একাডেমিক ভবনের সামনে থেকে বের হয় বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা। এতে সকল অনুষদের ডীন, রেজিস্ট্রার, বিভাগীয় প্রধানসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ অংশগ্রহণ করেন।

    শোভাযাত্রা শেষে শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয় আলোচনা অনুষ্ঠান। বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালক (ছাত্র কল্যাণ) অধ্যাপক ড. মো. নজরুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম বলেন, বর্তমান সরকারের উন্নয়ন ধারা অব্যাহত রাখতে ও প্রকৌশল ও প্রযুক্তি শিক্ষার উৎকর্ষ সাধনে ডুয়েট গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে চলছে। তিনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ডিজিটাল বাংলাদেশ, রূপকল্প ২০২১ ও ২০৪১ গড়ার ক্ষেত্রে ডুয়েটের শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের একসঙ্গে কাজ করার আহবান জানান। এছাড়া তিনি ডুয়েটের নানাবিধ সমস্যা সমাধানেরও আশ্বাস দেন।

    আলোচনা সভায় অনুষ্ঠানের প্রধান পৃষ্ঠপোষক উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আলাউদ্দিন বলেন, একটি চারা গাছ থেকে নানা সংগ্রাম-আন্দোলনের মাধ্যমে ডুয়েট আজ এই পর্যায়ে এসেছে। তিনি বলেন, বিজ্ঞান, প্রযুক্তি ও কারিগরি শিক্ষা ছাড়া এ দেশের উন্নয়ন সম্ভব নয়। আর এ উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে ডুয়েটের গ্রাজুয়েটবৃন্দ নিরলস ও কঠোর পরিশ্রম করে যাচ্ছে।

    অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. গনেশ চন্দ্র সাহা, রেজিস্ট্রার (অ. দা.) অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান চৌধুরী, পরিচালক (শারীরিক শিক্ষা কেন্দ্র) অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আবুল কাশেম, ডুয়েট অফিসার্স এসোসিয়েশনের সভাপতি ডা. এমদাদুল হক, কর্মচারী সমিতির সভাপতি মো. মুক্তার হোসেন, ডুয়েট ছাত্রলীগের সভাপতি মো. তাইবুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক বিনয় ব্যানার্জী, ডুয়েটের সাবেক শিক্ষার্থী অম্লান দত্ত, নুর মোহাম্মদ প্রমূখ। অনুষ্ঠানে বিভিন্ন অনুষদের ডীন, বিভাগীয় প্রধান, শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ আরো অনেকেই উপস্থিত ছিলেন।

    এছাড়াও সন্ধ্যায় অনুষ্ঠিত হবে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও জনপ্রিয় সঙ্গীত শিল্পীদের নিয়ে ব্যান্ড শো। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে থাকার কথা রয়েছে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি মো. জাহিদ আহ্সান রাসেল এমপি।

    অনুষ্ঠানে ক্যাম্পাসের পুরনো দিনের স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে এ সময় অনেকেই আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন।

    উল্লেখ্য, গত ১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ‘ডুয়েট ডে’ থাকলেও তখন বিশ্ববিদ্যালয়ে ঈদের ছুটি চলতে থাকায় পরবর্তীতে তা পালনের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

    Spread the love