• নেপালে বিমান বিধ্বস্ত : নিহত ৪৯


    ডেস্ক নিউজ : নেপালের কাঠমান্ডুতে বিধ্বস্ত ইউএস বাংলা উড়োজাহাজের ৭১ জন আরোহীর কমপক্ষে ৪৯ জন নিহত হয়েছে। নেপালের বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মাশফি বিনতে শামস জানিয়েছেন, কাঠমান্ডুতে বিধ্বস্ত হওয়া বিমানে সর্বশেষ ৪৯ জন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। তবে নিহতদের মধ্যে কতজন বাংলাদেশি তা এখনো জানা যায়নি। মাশফি বিনতে শামস বলেন, বিমানে মোট যাত্রী ছিলেন ৬৭ জন। ৪ জন ক্রু। ৩২ জন বাংলাদেশি। ১ জন মালদ্বীপের। একজন চীনের। বাকিরা নেপালি। ৪৯ জন নিহত হয়েছেন। কতজন নেপালি, কতজন বাংলাদেশি তা আমরা এখনো নিশ্চিত না। ১০ জন বাংলাদেশি জীবিত আছেন বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে। আরো চারজন বাংলাদেশিকে চিকিৎসার পর ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। তবে বিমানটির অন্তত ৫০ যাত্রী নিহত হয়েছে বলে জানাচ্ছে নেপালের প্রথমসারির সংবাদমাধ্যম মাই রিপাবলিকা। রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও সংগঠন গভীর শোক জানিয়েছেন।

    বাংলাদেশের বেসরকারি বিমান সংস্থা ইউএস-বাংলার একটি উড়োজাহাজ নেপালের ‘কাঠমান্ডু ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে’ (টিআইএ) অবতরণের সময় সেখানকার স্থানীয় সময় দুপুর ২টা ২০ মিনিটে বিধ্বস্ত হয়। এ সময় উড়োজাহাজটিতে আগুন ধরে যায়। বিধ্বস্ত বিমানটিতে পাইলট, কো-পাইলট ও ২ জন ক্রু এবং ৬৭ জন আরোহী ছিলো। ইউএস-বাংলা কর্তৃপক্ষ বলছে, ড্যাশ-৮ কিউ ৪০০ মডেলের ওই উড়োজাহাজে ৭১ জন আরোহীর মধ্যে ৬৭ জন ছিলেন যাত্রী, বাকিরা ক্রু।

    ইউএস-বাংলা এয়ার লাইন্সের জেনারেল ম্যানেজার (মার্কেটিং সাপোর্ট এন্ড পিআর) কামরুল ইসলাম সাংবাদিকদের জানান, আজ বাসস’র প্রতিনিধির কাছে কাঠমান্ডুতে বিমান দুর্ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, সোমবার দুপুর ১২টা ৩০ মিনিটের সময় এস-২-২১১ নম্বর ফ্লাইট (এজিইউ) ৬৭ জন যাত্রী নিয়ে নেপালের কাঠমান্ডুর উদ্দেশে হযরত শাহজালাল (রহ.) বিমানবন্দর থেকে ছেড়ে যায়। স্থানীয় সময় দুপুর ২টা ২০ মিনিটে টিআইএ গিয়ে বিমানটি অবতরণকালে দুর্ঘটনাটি ঘটে।

    বেসরকারি বিমান সংস্থাটির উড়োজাহাজটিতে যে চারজন ক্রু ছিলেন তাদের মধ্যে প্রধান বৈমানিক আবিদ সুলতান ও একজন ক্রু প্রাণে বেঁচে গেলেও কো পাইলট পৃথুলা রশিদ ও ক্রু খাজা হোসেনের নাম কাঠমান্ডু মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের দেওয়া মৃতদের তালিকায় রয়েছে।

    নেপালি কর্তৃপক্ষ ইতোমধ্যে ১৬ বছরের পুরনো ওই উড়োজাহাজের ব্ল্যাকবক্স উদ্ধার করেছে। দুর্ঘটনার কারণ খতিয়ে দেখতে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন নেপালের প্রধানমন্ত্রী খড়গা শ্রসাদ শর্মা অলি।

    Spread the love