• ব্রেকিংনিউজ: বইমেলায় উদয় হাকিমের বইয়ের মোড়ক উম্মোচন করলেন পরিকল্পনা মন্ত্রী     ::     সড়ক দূর্ঘটনায় তারেক মিশুক নিহত : বাস চালকের যাবজ্জীবন     ::     কাপাসিয়ার শীতলক্ষ্যা নদী থেকে উদ্ধারকৃত জীপটি জাপা নেতা হেফজুরের     ::     একুশের প্রথম প্রহরে ভাষা শহীদদের প্রতি রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা নিবেদন     ::     বাজারে আসছে ওয়ালটনের ইন্টেলিজেন্ট ইনভার্টার, ক্যাসেট ও সিলিং টাইপ এসি     ::    
    05_12_2016 Jute

    সোনালী আঁশ পাটকে নতুন করে বাংলাদেশের মানুষের কাছে তুলে ধরতে কাজ করছে সরকার: মীর্জা আজম


    image_print

    স্টাফ রিপোর্টার : বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম এম.পি. বলেছেন, “ বাংলাদেশের সোনালী আঁশ পাটকে নতুন করে বাংলাদেশের মানুষসহ বিশ্ববাসীর কাছে তুলে ধরতে হবে। এ জন্য কাঁচা পাটের রপ্তানী নির্ভরতার হ্রাস করে পাটের অভ্যন্তরীণ ব্যবহার করতে কাজ করছে সরকার। বহুমুখী পাটজাত পণ্য উৎপাদন, বাজারজাতকরণ ও রপ্তানীতে সব ধরনের সহায়তা প্রদান করা হবে । এজন্য এর মধ্যে বৈচিত্রকৃত পাটজাত পন্য ও পাটকাঠি থেকে উৎপাদিত কার্বন রপ্তানির বিপরীতে রপ্তানী ভর্তুকি/নগদ সহায়তা ২০ শতাংশ প্রদানের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।  এছাড়াও অন্যান্য কৃষিপণ্য যে ধরনের ব্যাংক ঋণ/ আর্থিক সহায়তা পায় পাট ও কৃষিপণ্য হিসাবে সে ধরনের সহায়তা পাবে, যা খুব দ্রুত বাস্তবায়ন হবে।

    রবিবার রাতে ঢাকা ক্লাব লিমিটেড এর স্যামসন এইচ. চৌধুরী সেন্টার এ বাংলাদেশ জুট এসোসিয়েশনের উদ্যোগে এক মতবিনিময় সভায় কাঁচা পাট রপ্তানীকারক ও পাট ব্যবসায়ীদের উদ্দেশ্যে তিনি এসব কথা বলেন।

    অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি বেগম মন্নুজান সুফিয়ান, এমপি।

    সভায় বাংলাদেশ জুট এসোসিয়েশনের সভাপতি শেখ সৈয়দ আলী, শির্পাস কাউন্সিল অব বাংলাদেশ এর চেয়ারম্যান মো:রেজাউল করিমসহ বাংলাদেশ জুট এসোসিয়েশনের নেতৃবৃন্দ বক্তৃতা রাখেন।

    প্রতিমন্ত্রী বলেন, পাট শিল্পের এ অগ্রযাত্রাকে ধরে রাখতে শেখ হাসিনার সরকার দেশের অভ্যন্তরে ৬টি পণ্য যথা ধান, গম, চাল, ভুট্টা, চিনি এবং সার মোড়কীকরণের ক্ষেত্রে পাটজাত পণ্যের ব্যবহার বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। খুব তাড়াতাড়ি আরো ১২টি পণ্য মোড়কীকরণের ক্ষেত্রে পাটজাত পণ্যের ব্যবহার বাধ্যতামূলক করা হচ্ছে। কাঁচা পাট ও পাটজাত পণ্যের উৎপাদন রপ্তানী বৃদ্ধি, দেশের অভ্যন্তরের পাটপণ্যের ব্যবহার বৃদ্ধি, পাটের ন্যায্যমূল্য নির্ধারণ ও পরিবেশ রক্ষায় পণ্যের মোড়কীকরণে পাটের বাধ্যতামূলক ব্যবহার আইন প্রনয়ন করা হয়েছে।