• মুক্তিযোদ্ধা রউফকে বাড়ি দিলেন গাজীপুরের জেলা প্রশাসক


    গাজীপুর প্রতিনিধি : গাজীপুরের জেলা প্রশাসক এস এম তরিকুল ইসলাম মঙ্গলবার বিকেলে আনুষ্ঠানিকভাবে ঘরের চাবি বুঝিয়ে দেন বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুর রউফকে। মাথার উপর ছাদ পেয়ে বেজায় খুশি আবদুর রউফ। কালের কন্ঠের দশম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে গত ১০ জানুয়ারি গাজীপুরে সম্মানা দেয়া হয়েছিল মুক্তিযোদ্ধা আবদুর রউফকে। অস্বচ্ছল ওই মুক্তিযোদ্ধার জায়গা-জমি বা বাড়ি নেই জেনে তাঁকে ‌দ্রুত জমি ও ঘর দেয়ার আশ্বাস দিয়ে ছিলেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি জেলা প্রশাসক।

    এ উপলক্ষে গতকাল সোমবার বিকেলে শ্রীপুরের রাজাবাড়ি এলাকায় এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। জেলা প্রশাসক ছাড়াও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ শামছুল আরেফীন, সহকারী কমিশনার (ভূমি) এম ডি শামসুল আরিফীন, স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো: ফারুক হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

    অনুষ্ঠানে জেলা প্রশাসক বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গৃহহীন মানুষের জন্য নানা প্রকল্প নিয়েছেন। ওই প্রকল্পের আওতায় রাজাবাড়ি গুচ্ছগ্রাম ২য় প্রকল্পের আওতায় ১০টি বাড়ি নির্মাণ করা হয়। ওই ১০টির মধ্যে একটি বাড়ি মুক্তিযোদ্ধা আবদুর রউফকে বরাদ্ধ দেয়া হয়েছে। ৫ শতক জমিসহ বাড়িতে টয়লেট ও পানির টিউবওয়েল করে দেয়া হয়েছে। শীঘ্রই বাড়িতে বিদ্যুৎ সংযোগও দেয়া হবে। আবদুর রউফের মত সাহসী মানুষরাই ১৯৭১ সালে অস্ত্র হাতে নিয়ে শত্রুর উপর ঝাপিয়ে পড়েছিলেন বলেই দেশ স্বাধীন হয়েছে। আমরা মাথা উঁচু করে বাস করছি। কালের কন্ঠের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর অনুষ্ঠানে না গেলে তিনি জানতেন না একজন মুক্তিযোদ্ধা হয়েও আবদুর রউফ অতটা অস্বচ্ছল। চা বিক্রি করে তিনি দুই মেয়েকে লেখাপড়া করাচ্ছেন। তাঁর দুই মেয়ের চাকুরির ব্যবস্থারও আশ্বাস দেন জেলা প্রশসাক।

    বাড়ি পেয়ে অনুভূতি জানাতে গিয়ে মুক্তিযোদ্ধা আবদুর রউফ বলেন, ‘যুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করেছিলাম। বিনিময়ে কিছু পাব চিন্তা করিনি। বহু চেষ্টা করেও একটু জমি কিনতে পারেননি। আজ জমি ও বাড়ি পেলাম। এটি আমার কাছে স্বপ্নের মত লাগছে। জেলা প্রশাসক ও কালের কন্ঠের কাছে আমি কৃতজ্ঞ’।

    মুক্তিযোদ্ধা রউফের আদি বাড়ি সিলেটের জৈয়ান্তাপুর উপজেলার লক্ষ্মীপুর গ্রামে। বাবার নাম মোহাব্বত আলী। দেশ স্বাধীন হলে ভিটেমাটিহীন আব্দুর রউফ কিছুদিন গ্রামে পাথর তোলা ও দিনমজুরীর কাজ করেন। পরে কাজের সন্ধানে চলে আসেন গাজীপুরে। তারপর থেকে গাজীপুরেই আছেন। জুতা বিক্রি, দর্জির কাজ হয়ে এখন তিনি গাজীপুর শহরের মুন্সিপাড়া এলাকায় ছোট একটা দোকান ভাড়া নিয়ে চা বিক্রি করেন।

    Spread the love
    Social media & sharing icons powered by UltimatelySocial