• ব্রেকিংনিউজ: চলে গেলেন ওয়ালটন গ্রুপের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান এস এম নজরুল ইসলাম     ::     বিনম্র শ্রদ্ধায় মহান বিজয় দিবস পালন     ::     গাজীপুরে মহান বিজয় দিবস উদযাপিত     ::     আজ মহান বিজয় দিবস     ::     বাজারে ওয়ালটনের ৩২ ইঞ্চি এলইডি টিভি এখন হট কেক     ::    
    Faridpur-Rice

    ফরিদপুরে আমন ধানের বাম্পার ফলন


    image_pdfimage_print

    ফরিদপুর প্রতিনিধি : ফরিদপুর জেলায় এবছর আমন ধানের বাম্পার হয়েছে। বাজারে ধানের দাম বেশী পাওয়ায় কৃষকের মুখে হাঁসি ফুটেছে। আমন ধান আবাদের শুরুতেই আবহাওয়া অনুকুলে না থাকলেও ধানে ফলন ভাল হয়েছে বলে জানালেন কৃষি কর্মকর্তা। আর কৃষকরা সরাসরি কৃষকের কাছ থেকে ধান ক্রয়ের দাবী জানিয়েছেন।

    আমন ধান আবাদের শুরুতেই দু-দফা বন্যায় ব্যাপক ক্ষতির মধ্যে পড়ে ফরিদপুর অঞ্চরের কৃষকেরা। বন্যার ক্ষতি পুষিয়ে নিতে পানি নেমে যাওয়ার সাথে সাথে কৃষকেরা দ্রæত আমন আবাদ শুরু করে। সময় মত সার-কীটনাশক দিতে পারায় ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। মাঠ গুলোতে এখন সোনালী ধানের সুবাতাস বইছে। ফরিদপুর জেলার সদর উপজেলা, বোয়ালমারী, সদরপুর, চরভদ্রাসন ও মধুখালী উপজেলায় ব্যাপক আমন আবাদ হয়েছে।

    এখন চলছে ধান কাটা ও মাড়াই কাজ। ধান কাটায় ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছে কৃষকেরা। বসে নেই কৃষানীরাও। তারাও ব্যস্ত আছে ধান উড়ানো ও শুকানোর কাজে।

    চলতি মৌসুমে এক মন ধান উৎপাদনে ছয়শ টাকা খরচ হলেও, বর্তমানে বাজারে এক মন ধান বিক্রি হচ্ছে এক হাজার টাকাও বেশী। ফলে কৃষকের মুখে হাঁসি ফুটেছে।

    কৃষকেরা বলেন, আমন ধান আবাদে সার-ওষুধ ও সেচ কম লাগায় উৎপাদন খরচ কম হয়েছে। ধানের ফল ভাল হয়েছে। ধান আবাদ করে আমরা লাভ বান। তবে সরকার সরাসরি কৃষকদের কাছ তেকে ধান ক্রয় করলে কৃষক আরও বেশী লাভবান হবে।

    সদর উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার কৃষিবিদ মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, চলতি মৌসুমে আমন ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। বাজারে ধানের দামও বেশী। আর চলতি বছর প্রচুর বৃষ্টিপাতের কারনে আমন ধান আবাদের সময় কৃষকদের বাড়তি সেচের প্রয়োজন হয় নি আর সে কারনে কৃষকের উৎপাদন খরচ কম হয়েছে। আর কৃষক লাভবান হচ্ছে।

    ফরিদপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্র জানায়, চলতি বছর ৬৬ হাজার ৭২০ হেক্টর জমিতে আমন ধানের আবাদ হয়েছে। যা গত বছরের চেয়ে ১৮ শতাংশ বেশী জমিতে আমন ধানের আবাদ হয়েছে।

    ফরিদপুর সদর উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ মো. আবুল বাসার মিয়া বলেন, চলতি বছর বিভিন্ন প্রতিকূল আবহাওয়া থাকা সত্যেও ফরিদপুর জেলায় আমন ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। ধানের উৎপাদনও ভাল হয়েছে। কৃষক লাভবান হচ্ছে।

    আগামীতে সরকার কৃষকদের কাছ থেকে সরাসরি ধান ক্রয় করবে এমনটাই প্রত্যাশা ফরিদপুর জেলার চাষীদের।