• ব্রেকিংনিউজ: জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট নির্বাচন ৩০ ডিসেম্বর     ::     শেখ হাসিনা সরকার আবারও ক্ষমতায় আসবে : নৌ পরিবহন মন্ত্রী     ::     ইতিহাস মুছে ফেলার চেষ্টা করলেও তা মুছে ফেলা যায় না : প্রধানমন্ত্রী     ::     জাতীয় পর্যায়ে এবারও সেরা কর দাতার সম্মাণনা পেলো ওয়ালটন     ::    
    13_11_2017-Homayon-Ah

    নুহাশ পল্লীতে শীঘ্রই হুমায়ূন আহমেদ জাদুঘর স্থাপন করা হবে : শাওন


    image_pdfimage_print

    গাজীপুর প্রতিনিধি : নন্দিত কথা সাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের নিজ হাতে গড়া গাজীপুর সদর উপজেলার পিরুজালীতে অবস্থিত স্বপ্নের নুহাশ পল্লীতে হুমায়ুন আহমেদের ৬৯তম জন্মদিন নানা কর্মসূচির মাধ্যমে পালিত হয়েছে।

    হুমায়ূন আহমেদের এবারের জন্ম দিনে রবিবার রাত বারটা এক মিনিটে কেক কেটে এবং প্রায় এক হাজার মোমবাতি প্রজ্জলন করে পুরো নূহাশ পল্লীকে আলোকিত করা হয়। সোমবার ভোরে হুমায়ূন আহমেদের স্ত্রী মেহের আফরোজ শাওন, ছেলে নিষাদ ও নিনিতকে নিয়ে নূহাশ পল্লীতে আসেন। সকাল সোয়া ১০টার দিকে মেহের আফরোজ শাওন ছেলে নিষাদ ও নিনিতকে নিয়ে হুমায়ূন আহমেদের কবরে পুস্পস্তবক অর্পণ, ফাতেহা পাঠ ও মোজানাতে অংশ নেন। পরে নূহাশ পল্লীর হোয়াইট হাউজের সামনে জন্মদিনের কেক কাটা হয়।

    এসময় মেহের আফরোজ শাওন সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে বলেন, হুমায়ূন আহমেদের ব্যবহৃত প্রচুর জিনিস আছে, সঙ্গে তার হাতে লেখা পান্ডুলিপি, বই, চশমা, কলমগুলো, ওনার গ্লাসগুলো, যে কাপে চা খেতেন, যে টেবিলে লিখতেন, এগুলো সংরক্ষণের প্রয়োজন। সেগুলো আমার কাছে, হুমায়ূন আহমেদের ভাই-বোনদের কাছে, তার সন্তানদের কাছে আছে। আমার ইচ্ছা নূহাশ পল্লীতে একটি হুমায়ূন আহমেদ স্মৃতি জাদুঘর করব। এই প্রস্তাবটা নিয়ে আমি পরিবারের সাথে আলোচনা করেছি। আশা করছি-খুব শীঘ্রই পারিবারিক সম্মতিতে আমরা নূহাশ পল্লীতে জাদুঘরটি স্থাপন শুরু করতে পারব।

    শাওন আরো বলেন, আমরা যারা হুমায়ূন আহমেদকে সব সময় কাছে পেয়েছিলাম। একটা জায়গা আমরা আনন্দ পাই, যে আমাদের মনে হয়-ওই দিন আমাদের হুমায়ূন আহমেদকে নিয়ে সবার একটা আয়োজন। আমাদের ভেতরের আয়োজন কিন্তু রোজ থাকে। আমরা এক সাথে যে কোন সুটিং করলে আমরা হুমায়ূন আহমেদকে একইভাবে স্বরণ করি। যখন হুমায়ূন আহমেদের নাটক যখন এক সঙ্গে দেখি তখন স্বরণ করি। জন্মদিনে হয় কি-সারা বাংলাদেশের মানুষ যেভাবে স্মরণ করে, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নিউজ তাকালে যেমন হুমায়ূন আহমেদের জন্য শুভেচ্ছায় সবাই ভরিয়ে দেয়, সবাই প্রোফাইল ছবি পরিবর্তন করে। আমাদের তখন অনেক ভাল লাগে।

    13_11_2017-Homayon-Ah2

    এসব অনুষ্ঠানে হুমায়ূন আহমেদের ছেলে নিশাত, নিনিত, অভিনেতা সৈয়দ হাসান সোহেল, নাটকের সহকারী পরিচালক জুয়েল রানা, মোঃ ইব্রাহিম, মোঃ তুহিনসহ নূহাশ পল্লীর কর্মচারীরাও অংশ নেন।

    এদিকে সকাল থেকেই হুমায়ূন আহমেদ’র ভক্তরা নূহাশপল্লীতে আসেন। তাদের অনেকেই প্রিয় লেখকের কবরে ফুল দেন এবং নিশ্চুপ দাঁড়িয়ে থেকে তার আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন। আবার অনেকে ঘুরে ঘুরে হুমায়ূন আহমেদ’র হাতে গড়া নুহাশ পল্লী দেখেন। জন্মদিন উপলক্ষে নুহাশপল্লীর ভাষ্কর আসাদ খান তার দ্বিতীয় একক শিল্পকর্ম প্রদর্শনী করেন। এতে কাঠ দিয়ে তার তৈরী ৬৯টি শিল্পকর্ম প্রদর্শন করা হয়।

    উল্লেখ্য, জনপ্রিয় লেখক ও কথা সাহিত্যিক হুমায়ুন আহমেদ ১৯৪৮ সালের ১৩ নভেম্বর নেত্রকোনার কেন্দুয়া উপজেলার কুতুবপুর গ্রামে জন্ম গ্রহণ করেন। ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে ২০১২ সালের ১৯ জুলাই ৬৪ বছর বয়সে আমেরিকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি। পরে ২৪ জুলাই গাজীপুর সদর উপজেলার পিরুজালী এলাকায় অবস্থিত নুহাশ পল্লীর লিচুগাছ তলায় প্রয়াত হুমায়ুন আহমেদের মরদেহ দাফন করা হয়।