• টঙ্গীতে জোড় ইজতেমা শুরু


    (ফাইল ছবি)

    গাজীপুর প্রতিনিধি : বিশ্ব ইজতেমাকে সামনে রেখেই প্রতি বছরের ধারাবাহিকতায় শুক্রবার সকাল ১০টা থেকে টঙ্গীর ইজতেমা ময়দানে শুরু হয়েছে জোড় ইজতেমা। অন্যান্য বছর এ পরামর্শমূলক সভা ৫ দিনব্যাপী হলেও এবার করোনা পরিস্থিতির কারণে তা মাত্র ২৪ ঘণ্টার জন্য অনুষ্ঠিত হবে বলে জানিয়েছেন আয়োজকরা। সে হিসেবে আজ শুক্রবার সকাল ১০টা থেকে শনিবার সকাল ১০টা পর্যন্ত চলবে।

    তাবলীগের মিডিয়া সমন্বয়ক মুফতি জহির ইবনে মুসলিম জানান, শুরা-ই-নেজামের তত্ত্বাবধানে আয়োজিত এ ইজতেমায় (পরামর্শমূলক সভা) ঢাকার কাকরাইল জামে মসজিদের পেশ ইমাম ও তাবলিগ জামাতের শীর্ষস্থানীয় মুরুব্বি হাফেজ মাওলানা জোবায়ের আহমেদের অনুসারী চার জেলার মোট ৪ হাজার তিন চিল্লার সাথীরা অংশ নেবেন।

    তিনি জানান, প্রতিটি জেলায়ই পৃথকভাবে জোড় ইজতেমা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। শুধু ঢাকা, মুন্সীগঞ্জ, গাজীপুর ও ময়মনসিংহ জেলার তিন চিল্লার সাথীরা শুক্র ও শনিবার বিশ্ব ইজতেমা ময়দানে অংশগ্রহণ করছেন। করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে আগামী বছরের ৮, ৯ ও ১০ জানুয়ারি প্রথম পর্ব ও ১৫, ১৬, ১৭ জানুয়ারি দ্বিতীয় দফা বিশ্ব ইজতেমা অনুষ্ঠিত হবে বলেও তিনি উল্লেখ করেন। তবে আগামী বছরের এ বিশ্ব ইজতেমা বড় আয়োজনে নাকি সীমিত পরিসরে হবে তা নিয়ে এখনও অনিশ্চয়তা রয়েছে বলে জানা গেছে।

    জোড় ইজতেমা উপলক্ষে গত বুধবার থেকেই টঙ্গীর বিশ্ব ইজতেমা ময়দানে আসতে শুরু করেছেন মুসল্লিরা। বিশ্ব ইজতেমা ময়দানের উত্তর পাশে (মুন্নু কটন টেক্সটাইলস মিলসের পাশ) টিনসেডে এ বছর জোড় ইজতেমা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এবারের জোড় ইজতেমায় ঢাকা জেলার ২ হাজার ৫০০, গাজীপুর জেলার ৭০০, টাঙ্গাইল জেলার ৪০০ ও মানিকগঞ্জ জেলার ৪০০ মুসল্লিসহ সর্বমোট ৪ হাজার তাবলীগের তিন চিল্লার সাথীরা অংশ গ্রহণ করতে পারবেন।

    উল্লেখ্য, ২০২০ সালের বিশ্ব ইজতেমায় পরবর্তী বিশ্ব ইজতেমার তারিখসহ জোড় ইজতেমার তারিখ ঘোষণা করা হয়েছিল। মহামারি করোনার কারণে এ বছর জোড় ইজতেমার নির্ধারিত সময় গত ২৭ নভেম্বর থেকে ১ ডিসেম্বর পর্যন্ত হলেও তা অনুষ্ঠিত হয়নি।

    গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের (জিএমপি) টঙ্গী পশ্চিম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. শাহ আলম জানান, প্রশাসনের পক্ষ থেকে তিন চিল্লার সাথীদের ইজতেমা ময়দানে পরামর্শ সভা করার জন্য শুক্রবার সকাল ১০টা থেকে শনিবার সকাল ১০টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টার জন্য সময় দেয়া হয়েছে । টঙ্গীর ময়দানে আগত মুসল্লিদের নিরাপত্তায় কঠোর পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।

     

    Spread the love