• ব্রেকিংনিউজ: আয়নাইজার প্রযুক্তির এসি আনলো ওয়ালটন     ::     শ্রীপুরের অভ্যন্তরীন সড়কের বেহাল অবস্থা     ::     লন্ডনের উদ্দেশ্যে ঢাকা ছেড়েছেন খালেদা জিয়া     ::     টিভি রিপ্লেসমেন্ট গ্যারান্টির ঘোষণা ওয়ালটনের     ::    
    Followup gb

    কালিয়াকৈরে ট্রেন কার সংঘর্ষের ঘটনায় তদন্ত কমিটি


    image_print

    গাজীপুর প্রতিনিধি : গাজীপুরের কালিয়াকৈরে মৈত্রী এক্সপ্রেস ট্রেনের সঙ্গে প্রাইভেটকার সংঘর্ষে কারের পাঁচযাত্রী নিহতের ঘটনায় রেলওয়ের চার সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

    বাংলাদেশ রেলওয়ের পাকশি বিভাগীয় ম্যানেজার অসীম কুমার তালুকদার জানান, গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার গোয়ালবাথান এলাকার রেলক্রসিং এলাকায় রবিবার সকালে প্রাইভেট কারের সঙ্গে ভারতের কলকাতাগামী মৈত্রী এক্সপ্রেস ট্রেনের সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই কারের চালকসহ পাঁচজন নিহত হন। এ ঘটনা তদন্তে পাকশি বিভাগীয় প্রকৌশলী-২ মো. আসাদুল হককে প্রধান করে চার সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন-রেলওয়ের বিভাগীয় প্রকৌশলী (যান্ত্রিক) কামরুজ্জামান, পাকশি বিভাগীয় সহকারি পরিবহণ কর্মকর্তা মো. নাসির উদ্দিন ও মেডিক্যাল অফিসার পরিতোষ চক্রবর্তী। আগামী ১৩ জানুয়ারির মধ্যে তাদের তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়ার সময় দেয়া হয়েছে।

    রেলওয়ের ওই কর্মকর্তা আরো বলেন, ঘটনার পর বিকেলে তিনিসহ রেলওয়ের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে পরিদর্শনে যান। গোয়াল বাথানের ওই রেলক্রসিংটি অনুমোদিত থাকলেও তা ছিল আনমেন্ড ও বেরিয়ারবিহীন। তবে সেখানে সতর্কীকরণের একটি সাইনবোর্ড লাগানো ছিল। জয়দেবপুর থেকে বঙ্গবন্ধু সেতু (ইস্ট) পর্যন্ত ১০২টি অনুমোদিত ক্রসিং রয়েছ। তাদের মধ্যে ১৭টি ক্রসিং হলো ম্যানযুক্ত, ৯০টি ক্রসিং হলো আনম্যান্ড। আর আনঅথরাইজড ক্রসিং রয়েছে ২০ট। লোকজন রেলপথের আশেপাশে ঘরবাড়িসহ বিভিন্ন স্থাপনা তৈরির পরই তারা ওইসব আনঅথরাইজড ক্রসিং তৈরি করে ফেলছে।

    এদিকে এ ঘটনায় ট্রেন ও রেলপথের ক্ষতির অভিযোগে রেলওয়ে থানায় সোমবার নিহত কার চালকের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। ওই ঘটনায় কার চালকসহ কারের পাঁচজন নিহত হন।

    রেলওয়ের জেষ্ঠ্য উপ-সহকারি প্রকৌশলী মো. মাহবুব হাসান বাদি হয়ে রেলওয়ে কমলাপুর থানায় সোমবার মামলা করেছেন।

    মামলার বাদি প্রকৌশলী মো. মাহবুব হাসান সাংবাদিকদের জানান, বেপরোয়াভাবে প্রাইভেট কার চালিয়ে আইনভঙ্গ করে গোয়ালবাথান এলাকার রেলক্রসিং অতিক্রমের সময় কলকাতাগামী মৈত্রী এক্সপ্রেস ট্রেনের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়। ওই সংঘর্ষে ট্রেনটির ইঞ্জিন ও রেললাইনের ক্ষতিসাধন হয়েছে মর্মে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

    কমলাপুর রেলওয়ে থানার ওসি মো. ইয়াসিন ফারুক জানান, সংঘর্ষে ট্রেন এবং রেলপথের ক্ষতি ছাড়াও কারের চালকসহ পাঁচজন নিহত হয়েছেন। ট্রেনটির ইঞ্জিন, তেল ও রেললাইনের ক্ষতিসাধনের অভিযোগে সোমবার দুপুরে মামলা হয়েছে।

    দুর্ঘটনায় সন্তান ও স্ত্রী নিহত হওয়ায় বিদ্যুৎ মিয়া ও রিপন মিয়ার পরিবার শোকস্তব্ধ হয়ে পড়েছে। রবিবার বিকেলেই নিহতদেরকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে।